ঢাকা বৃহঃস্পতিবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৮ই ফাল্গুন ১৪২৬


পিপি হায়দার হত্যায় ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল


১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৬:০৯

আপডেট:
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০২:৪৪

ঝালকাঠিতে রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি (পিপি) অ্যাডভোকেট হায়দার হোসেন হত্যা মামলায় জেএমবির পাঁচ সদস্যের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন হাইকোর্ট।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকার কথা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- রাজশাহীর বশির হোসেনের ছেলে আমিনুল ইসলাম ওরফে আমির হোসেন, বরগুনার রহিম আকন্দের ছেলে আবু শাহাদাত তানভীর, খুলনার টুটপাড়ার মোশারেফ হোসেনের ছেলে মুরাদ হোসেন, বরগুনার তালতলা গ্রামের শফিজুদ্দিনের ছেলে বেল্লাল হোসেন ও ঢাকার উত্তরখান এলাকার শামসুদ্দিনের ছেলে সগির হোসেন। এদের মধ্যে বেল্লাল হোসেন ও সগির হোসেন পলাতক রয়েছেন।

আসামিদের করা আপিল বিচারপতি সৌমেন্দ্র সরকার ও বিচারপতি শাহেদ নূর উদ্দিনের হাইকোর্ট বেঞ্চ খারিজ করে দেন এবং ডেথ রেফারেন্স গ্রহণ করে রায় দেন।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবীরা হলেন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল নির্মল কুমার দাস ও সৈয়দা শবনম মুশতারী।

অন্যদিকে, আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী এসএম শাহজাহান, এসএম মাহবুবুল ইসলাম, মহিনুর রহমান। পলাতকদের পক্ষে রাষ্ট্র নিযুক্ত ছিলেন আইনজীবী আসাদুর রহমান।

এর আগে ঝালকাঠির পিপি অ্যাডভোকেট হায়দার হোসেন হত্যা মামলায় ২০১৫ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আব্দুল হালিম পাঁচ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন। রায়ের বিরুদ্ধে আসামিরা উচ্চ আদালতে আপিল করেন।

ঝালকাঠি আদালতের বিচারক সোহেল আহম্মেদ হত্যা মামলায় সরকার পক্ষে লড়েন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের তৎকালীন সরকারি কৌঁসুলি হায়দার হোসেন। ২০০৭ সালের ১১ এপ্রিল রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি হায়দার হোসেনকে গুলি করে হত্যা করে জেএমবি সদস্যরা। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার তিন বছর পর ২০১০ সালের ১৭ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে সিআইডি।

নতুনসময়/আইকে