ঢাকা শুক্রবার, ১০ই এপ্রিল ২০২০, ২৮শে চৈত্র ১৪২৬


ইয়াবা ও পতিতা ব্যবসার বিরুদ্ধে কথা বলায় কাজী রাসেলকে ফাঁসানো হয়েছে


২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০১:৪২

আপডেট:
১০ এপ্রিল ২০২০ ০৬:৩৮

গতকাল কক্সবাজারের স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকায় “তরুনীসহ কাজী রাসেল আটক” শীর্ষক সংবাদটি আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদের বেশীর ভাগ অংশেই যে তথ্যগুলো উপস্থাপন করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, মনগড়া ও ষড়যন্ত্রমূলক।

মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) কক্সবাজার কটেজ ব্যবসায়ী মালিক সমিতির পাঠানো এক বিবৃতিতে এসব অভিযোগ করা হয়।

ওই বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা এই মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক সংবাদের তীব্র নিন্দা ও পতিবাদ জানাচ্ছি। মূল বিষয় হচ্ছে- কাজী রাসেল গত বছর অনুষ্ঠিত সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন এবং অল্প ভোটের ব্যবধানে হেরে যান। এরপর থেকে তিনি বিভিন্ন এলাকায় সামাজিক কাজক্রম করে যাওয়ার পাশাপাশি অসামাজিক ও অনৈতিক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে সোচ্চার হন। এরই অংশ হিসেবে হোটেল-মোটেল জোনের কটেজ জোনকে পতিতা ও মাদকমুক্ত ঘোষণা করে সেখান থেকে ইয়াবা ও পতিতা ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বন্ধ করতে অন্য ব্যবসায়ী ও স্থানীয়দের সচেতন করতে থাকে। এর পর থেকেই ওই ইয়াবা ও পতিতা ব্যবসায়ীরা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। এদিকে গত রবিবার কাজী রাসেলের নতুন নির্মিত বাড়ি উদ্বোধন উপলক্ষে একটি ছোট সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা। সেখানে ওই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে পুলিশকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে অনুষ্ঠানস্থল থেকে কাজী রাসেল ও কণ্ঠশিল্পী মীমকে আটক করে পুলিশ। কিন্তু সেসময় সেখান থেকে কোন অস্ত্র কিংবা ইয়াবা উদ্ধার করা হয়নি। কিন্তু কিছু অনলাইন ও পত্রিকার সংবাদ পড়ে আমরা রীতিমত হতবাক ও বিস্মিত। কারণ সংবাদের একাংশে কণ্ঠশিল্পী মীমকে বানানো হয়েছে পতিতা আর কাজী রাসেলকে বানানো হয়েছে পতিতা ব্যবসায়ী। যা বরাবরের হাস্যকর বিষয়। এটি শুধুমাত্র কাজী রাসেলের ব্যক্তিগত ইমেজ ও পারিবারিক সুনাম ক্ষুন্ন করার জন্য কুচক্রি মহলটি করিয়েছে। আমরা চ্যালেঞ্জ করে বলছি কটেজ জোনে কারা ইয়াবা ও পতিতা ব্যবসা করে তা সরেজমিনে সাংবাদিকেরা গেলে বুঝতে পারবেন। আশি করি জাতির বিবেক সাংবাদিকদের লেখনির মাধ্যমে কটেজ জোনের আসল পতিতা ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের মুখোশ উন্মোচিত হবে।