ঢাকা শুক্রবার, ১০ই এপ্রিল ২০২০, ২৭শে চৈত্র ১৪২৬


কেশরহাট ডিগ্রী কলেজ আয়োজিত বইমেলার শেষ দিন


২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২৩:২৬

আপডেট:
১০ এপ্রিল ২০২০ ০৪:১৪

রাজশাহী জেলার অন্তর্গত মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট ডিগ্রী কলেজ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ৫ দিন ব্যাপি অমর ২১শে বইমেলার আয়োজন করা হয়। পঞ্চম দিনের আজ শেষ দিন।

প্রতি বছর এই কেশরহাট ডিগ্রী কলেজ অমর ২১শে বইমেলার আয়োজন করতেন। কিন্তু অনাকাঙ্ক্ষিত কারণে বিগত ৮ বছর এই কেশরহাট ডিগ্রী কলেজ বইমেলার আয়োজন করতে সক্ষম হননি। এই বছর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে রাজশাহী ৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য মোঃ আয়েন উদ্দিনের সহযোগিতায় কেশরহাট ডিগ্রী কলেজ অমর ২১শে বইমেলার আয়োজন করেন। সকাল ৮ টা হতে রাত ১০ টা অবধি এই বইমেলা চলছে। বইমেলাতে প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শকের সমাগম ঘটেছে। আসলে এখন গ্রামে-গঞ্জে সেই আগের মত আর কোন মেলা আয়োজন করা হয় না বলে সম্ভবত এই বইমেলায় প্রচুর পরিমাণে দর্শক এসেছেন। বইমেলাতে অসংখ্য বইয়ের দোকান গড়ে উঠেছে এবং বিভিন্ন লেখকের এর বিভিন্ন রকমের বই প্রকাশিত হয়েছে এবং পুরনো অনেক বই এই বই মেলাতে পাওয়া যাচ্ছে। শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে বয়োবৃদ্ধ সকল শ্রেণী-পেশার নারী-পুরুষ এই বইমেলাতে এসেছেন। বইয়ের  দোকানের পাশাপাশি এই বইমেলাতে অসংখ্য খাদ্যের দোকান গড়ে উঠেছে এবং কসমেটিক্স সামগ্রী দোকান গড়ে উঠেছে। পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যাংক-বীমা ছাড়াও মোটরসাইকেলের শোরুম এর পক্ষ থেকেও দোকান দেওয়া করা হয়েছে। আসলে উপজেলা পর্যায়ে এত বড়, এত সুন্দর, এত চমৎকার একটি মেলার আয়োজন করা সম্ভব হয়েছে বলে কেশরহাট ডিগ্রি কলেজ কর্তৃপক্ষ সত্যি খুব আনন্দিত এবং সাধারণ জনগণকে তারা অন্তরের অন্তস্থল থেকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কেশরহাট  ডিগ্রী কলেজের সম্মানিত অধ্যক্ষ মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন জানান, কোন এক সময় আমরা নিয়মিত ২১শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে অমর ২১শে  বইমেলার আয়োজন করতাম। কিন্তু বিগত ৮ বছর বিভিন্ন সমস্যার কারণে আমরা এই মেলার আয়োজন করতে পারিনি। এই বছর মাননীয় মেয়র মহোদয়, মাননীয় এমপি মহোদয় এবং মাননীয় ডিসি মহোদয়ের সহযোগিতায় আমরা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে অমর ২১শে বইমেলার আয়োজন করতে পেরেছি বলে আমরা সত্যিই ধন্য এবং সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আজকে মেলার শেষ দিন সম্মানের সহিত যদি আমরা মেলাটি শেষ করতে পারি তাহলে সত্যিই ভাল লাগবে এবং আগামী বছরগুলোতে হয়তো আবারো এই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে অমর ২১শে বইমেলার আয়োজন করতে পারব।