ঢাকা বুধবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২৪, ৫ই বৈশাখ ১৪৩১


জাপানে ৬.১ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প


২ এপ্রিল ২০২৪ ১৪:৩৪

সংগৃহীত

জাপানে ৬.১ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। মঙ্গলবার উত্তরাঞ্চলের ইওয়াতে ও আওমোরি অঞ্চলে এই ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির আবহাওয়া সংস্থা।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল ছিল আইওয়াতে প্রিফেকচারের উত্তরাঞ্চলীয় উপকূলীয় অংশে ৭১ কিলোমিটার গভীরে। তবে এ কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

ভূমিকম্পটি প্রশান্ত মহাসাগরীয় প্লেটের অভ্যন্তরে ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এটি একটি স্থলমুখী প্লেটের নিচে বা দুটি প্লেটের মধ্যবর্তী সীমানার কাছাকাছি।

ভূমিকম্পের কারণে সুনামি সতর্কতাও জারি করা হয়নি বলে জানিয়েছে দেশটির আবহাওয়া দপ্তর। ভূমিকম্পের পর সরকার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সংকট ব্যবস্থাপনা কেন্দ্রে একটি তথ্য অফিস স্থাপন করেছে।

জাপানে প্রায়ই ভূমিকম্প আঘাত হানে। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের প্রথমদিনে জাপানের মধ্যাঞ্চলে ইশিকাওয়া অঞ্চলে ৭ দশমিক ৬ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হানে। এতে ২৪১ জনের মৃত্যু হয়।

ভূতাত্ত্বিকদের মতে, জাপানে বারবার ভূমিকম্প আঘাত হানার সবচেয়ে বড় কারণ দেশটির ভৌগোলিক অবস্থান। লাইভ সায়েন্সের তথ্যানুযায়ী, জাপান ‘প্যাসিফিক রিং অব ফায়ার’ বরাবর অবস্থিত, যা বিশ্বের ‘সবচেয়ে সক্রিয়’ ভূমিকম্প বেল্ট।

এই রিং অব ফায়ার হলো প্রশান্ত মহাসাগরের ধারে ‘ঘোড়ার নালের’ আকৃতির একটি বড় পথ, যা সক্রিয় আগ্নেয়গিরি এবং ভূমিকম্পের ক্রিয়াকলাপ বা ভূমিকম্প-প্রবণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত।

ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের তথ্য বলছে, পৃথিবীর প্রায় ৯০ শতাংশ ভূমিকম্প এই অংশে অর্থাৎ প্যাসিফিক রিং অব ফায়ারে সংঘটিত হয়, যার মধ্যে সবচেয়ে তীব্র ভূমিকম্পের ঘটনাও রয়েছে।

রিং অব ফায়ারের মধ্যে একাধিক টেকটোনিক প্লেটের মুভমেন্ট রয়েছে এবং প্রায়শই এগুলোর মধ্যে সংঘর্ষ হয়। লাইভ সায়েন্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ডগলাস গিভেন নামে একজন ভূ-পদার্থবিদ বলেন, ‘পৃথিবীর উপরিভাগ প্রায় এক ডজন বা তার বেশি বড় অংশে বিভক্ত হয়ে গেছে, যেগুলোর সবই ঘুরে বেড়াচ্ছে।’

জাপান চারটি ভিন্ন প্লেটের জয়েন্টে অবস্থিত, যার পূর্বে প্রশান্ত মহাসাগরীয় প্লেট ও ফিলিপিন্স প্লেট এবং পশ্চিমে উত্তর আমেরিকা প্লেট এবং ইউরেশিয়ান প্লেট রয়েছে।

নতুনসময়/এএম


জাপান, শক্তিশালী, ভূমিকম্প, ইওয়াত, আওমোরি