ঢাকা সোমবার, ২৭শে মে ২০১৯, ১৩ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬


উপজেলা ভোটেও রাজশাহীতে নৌকার জয়জয়কার


১০ মার্চ ২০১৯ ২২:৫২

আপডেট:
২৭ মে ২০১৯ ০০:২০

উপজেলা ভোটে রাজশাহীতে বিজয়ী উপজেলা চেয়ারম্যানরা

রাজশাহীতে উপজেলা নির্বাচনে নৌকার জয়জয়কার। আট উপজেলার সবকটিতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থীরা নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। এদের মধ্যে দুইজন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় এবং ছয়জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ছয়জন প্রার্থী।

এর আগে গত ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজশাহীর ছয়টি আসনে নৌকার প্রার্থীরা বিজয়ী হন।

বাগমারা উপজেলায় বিপুল ভোট বিজয়ী হয়েছেন নৌকা প্রতীক নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অনিল কুমার সরকার। তিনি ভোট পেয়েছেন ৩২ হাজার ২৪৭ ভোট। তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বি আনারস প্রতীক নিয়ে বাবুল আক্তার ভোট পেয়েছেন তিন হাজার ৮৩৪।

দুর্গাপুর উপজেলায় নৌকা প্রতীক নিয়ে নজরুল ইসলাম ভোট পেয়েছেন ৩৫ হাজার ৮০৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মজিদ ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ২৮ হাজার ৫৪৯।

চারঘাট উপজেলায় আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী নৌকা প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ৪৯ হাজার ৮৫০। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৫ হাজার ৯৭ ভোট।

তানোর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দুই প্রার্থীর হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে। এখনে নৌকার প্রার্থী লৎফর হায়দার রশিদ ময়না ভোট পেয়েছেন ৩৭ হাজার ২১৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ওয়ার্কার্স পার্টির হাতুড়ি প্রতীকে ভোট পান ৩৬ হাজার ৮৬৭ ভোট।

গোদাগাড়ী উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনিত নৌকার প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ভোট পেয়েছেন ৪৯ হাজার ৫০৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আনরস প্রতীক নিয়ে বদিউজ্জামান ভোট পেয়েছেন ১৮ হাজার ৫০২।

পুঠিয়া উপজেলায় নৌকার প্রার্থী জিএম হিরা বাচ্চু ভোট পেয়েছেন ৩৯ হাজার ৯৫৭। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় পার্টির আনসার আলী পেয়েছেন এক হাজার ৪৪৩ ভোট। সবচেয়ে বেশী ভোটের ব্যবধানে তিনি বিজয়ী হয়েছেন।

তবে বাঘা উপজেলায় জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লায়েব উদ্দিন লাভলু ও মোহনপুর উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী এ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

রাজশাহীর নয়টি উপজেলার মধ্যে আটটি উপজেলায় শন্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ হয়। সকাল ৮টা থেকে ৫২২টি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহন করা হয়েছে। তবে অনিয়মের কারণে গোদাগাড়ী ও বাগমারা উপজেলায় দুইটি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়েছে।

রাজশাহীর আটটি উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ছিলেন ৬৯ জন। এদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করণে ৬৫ জন প্রার্থী।