ঢাকা সোমবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৯ই আশ্বিন ১৪২৬


পুলিশের ওপর বোমা হামলার কারণ জানালেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী


৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৩:১১

আপডেট:
২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৫:৫৭

ছবি সংগৃহিত

সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকায় পুলিশের ওপর পাঁচটি বোমা নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। প্রথমটি গুলিস্তানে, সর্বশেষটি সায়েন্স ল্যাবরেটরির মোড়ে। তাও আবার মন্ত্রীর গাড়ি বহরের ওপর। সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে, সায়েন্স ল্যাবের বোমাটি ছিল রিমোট নিয়ন্ত্রিত। যেসব তথ্য পাওয়া গেছে, তাতে আপাতত স্পষ্ট, এ দুটি ঘটনাই ঘটিয়েছে উগ্রবাদী গোষ্ঠী অর্থাৎ জঙ্গিরা। অতএব এরা যে আবার সুসংগঠিত হওয়ার তৎপরতা চালাচ্ছে, তা জানান দিতেই একের পর এক পুলিশ ও সরকারে শীর্ষ ব্যক্তিদের ওপর হামলা করা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মো. মুরাদ হাসান।
সম্প্রতি দেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশন টকশো অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বলেন, এর আগে এ ধরনের যেসব ঘটনা ঘটেছে, সাম্প্রতিক ঘটনাগুলো এরই ধারাবাহিকতা বলে আমি মনে করি। এর আগে রাজধানীতেই এমন আরও যে কয়েকটি ঘটনা গত এক বছরে ঘটেছে সেসব ক্ষেত্রেও দেখা যাচ্ছে, প্রতিপক্ষ হচ্ছে পুলিশ ও সরকারের ব্যক্তিবর্গ। এরা মূলত সরকারকে ভয়ভীতি ও ভাবমূর্তি সংকটে ফেলাতে এধরনের হামলা চালাচ্ছে। তবে দেশে জঙ্গিদের অনেকটাই দমন করা হয়েছে। আবার এও সত্য, এদের একেবারে নির্মূল করা যায়নি। দেশে জঙ্গিবাদীদের অপতৎপরতা আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে নিঃসন্দেহে নিয়ন্ত্রিত কিন্তু তারা আপাতত অসংগঠিত হলেও সংগঠিত হওয়ার জন্য তৎপরতা শুরু করেছে। এর ধারাবাহিকতায় এসব হামলা করা হচ্ছে।

এছাড়াও তিনি বলেন, বাংলাদেশের গত কয়েক বছরের রাজনীতির চিত্র পর্যালোচনা করলে আমরা কি দেখতে পাই, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধীদের দল বিএনপি-জামায়াতদের রাজনৈতিক শক্তি কার্যকর আছে। তারা নানাভাবে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করছে। তাদের মূল লক্ষ্য হলো যেভাবেই হোক এই সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করা।
তিনি আরও বলেন, এদেশে বাঙালি সংস্কৃতি, গণতন্ত্রকে হত্যা ও জঙ্গিবাদ সৃষ্টির জন্য দায়ী হচ্ছে বিএনপি। এই দলটি যখনি ক্ষমতায় এসেছে, তখনি আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করতে মরিয়া হয়েছে। গণতন্ত্র বিশ্বাস করে না বলেই বন্দুকের নলের ডগায় ক্ষমতায় এসে হা-না ভোটের ব্যবস্থা চালু করে। আর যাই হোক, তাদের (বিএনপি) মুখে নির্বাচন, গণতন্ত্র এসব কথা মানায় না।ৃ