ঢাকা মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই ২০২৪, ২রা শ্রাবণ ১৪৩১


সাপের ছোবলে মৃত যুবককে জীবিত করার চেষ্টা, অতঃপর...


৩০ জুন ২০২৪ ১০:০২

ছবি: সংগৃহীত

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বিলের পানিতে মাছ ধরতে গিয়ে সাপের ছোবলে সাইফুল ইসলাম নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২৯ জুন) ভোরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। কিন্তু ওই মৃত ব্যক্তিকে কড়ি চালান দিয়ে সুস্থ করা সম্ভব এমন আজব তথ্য দিয়ে ব্যাপক আয়োজন চালাচ্ছেন এক কবিরাজ। আর এমন খবরে ভিড় জমিয়েছেন হাজারো উৎসুক জনতা।

 

নিহত সাইফুল কালিয়াকৈর উপজেলার বাসুরা এলাকার ইউনুছ আলীর ছেলে। তিনি পেশায় রাজমিস্ত্রি ছিলেন।

 

নিহতের সহকর্মী টাইলস মিস্ত্রী জাকির হোসেন বলেন, শুক্রবার রাতে তিনজন টেঁটা দিয়ে মাছ ধরতে যাই। একপর্যায়ে সাইফুল ইসলামের বাম পায়ের বুড়ো আঙ্গুলে সাপ কামড় দেয়। সঙ্গে থাকা অপর ব্যক্তি টেঁটা দিয়ে সাপটিকে মেরে ফেলেন। রাতেই তাকে চিকিৎসার জন্য মির্জাপুরের কুমদিনী হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মৃত ঘোষণা করার পর অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে গ্রামে নিয়ে আসা হয়।

 

নিয়ে আসার পর দেখলাম তার শরীর নরম, কিন্তু মৃত ব্যক্তির শরীর তো শক্ত হওয়ার কথা। তাকে যেভাবে ঘুরানো হচ্ছে সে ঘুরছে, একদম ঘুমন্ত মানুষের মতো। কবর খোঁড়াসহ দাফনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়। দুপুর ২টায় জানাজার সময় নির্ধারণ করে এলাকার মসজিদের মাইকে ঘোষণা দেওয়া হয়। এ সময় এক কবিরাজ এসে মরদেহ দেখতে চান। ওই কবিরাজ বলেন, ‘এটা ডেডবডি নয়। আমরা কড়ি চালান দিব।’ কড়ি চালান দিয়ে সাইফুল ইসলামকে সুস্থ করা সম্ভব বলে ওই কবিরাজ জানান। তবে ওঝাকে ঘটনাস্থলে পাওয়া যায়নি। ঝাড়ফুঁক দেওয়ার প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আনতে কবিরাজ সাভারে গিয়েছেন বলে জানা যায়। 

 

আমিনুল ইসলাম বলেন, জানাজা হওয়ার কথা ছিল কিন্তু ওই ওঝারা নাকি সাত দিন আগের সাপে কাটা মানুষকেও জীবিত করতে পারেন। এরপরই এই আয়োজন করা হয়েছে। সেটা দেখতেই আমি এসেছি।

 

স্থানীয় মসজিদের ইমাম আব্দুল জলিল জানান, সাপের কামড়ে মৃত সাইফুল ইসলামের জানাজার সময় নির্ধারণ করে দুপুরে এলাকার মাইকে ঘোষণা করা হয়। খোঁড়া হয় কবরও। কাফনের কাপড় পরানো হয়েছিল। হঠাৎ এক ওঝা এসে মৃত সাইফুল ইসলামের উপসর্গ দেখে চিকিৎসার মাধ্যমে তাকে জীবিত করা সম্ভব বলে স্বজনদের জানান। পরে ওঝার কথা বিশ্বাস করে ঝাড়ফুঁকের আয়োজন করেন স্বজনরা।

 

কালিয়াকৈর থানার ওসি এএফএম নাসিম বলেন,  সাপে কেটে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে বলে শুনেছি। যেহেতু তার পরিবারের আত্মবিশ্বাস যদি ওঝা ভালো করতে পারে, সেজন্য এ আয়োজন করেছে। উৎসুক জনতার ভিড় রয়েছে। কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।