ঢাকা শনিবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২ই ফাল্গুন ১৪২৫

প্রথম আলো-ডেইলি স্টারের মালিককে দুদকে তলব


১১ অক্টোবর ২০১৮ ২০:৫০

আপডেট:
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ১৫:৫৯

দৈনিক প্রথম আলো ও ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের মালিক, ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অবৈধ সম্পদ অর্জন, সরকারি জমি দখল, গ্যাস-বিদ্যুতের বিল বাকি, বিদেশে অর্থপাচারসহ নানা অভিযোগে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে দুদক।

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) দুদকের উপপরিচালক ও অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক নোটিশে আগামী ১৮ অক্টোবর সকাল ১০টায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হতে বলা হয়েছে।

দুদকের অভিযোগে বলা হয়, লতিফুর রহমান, চেয়ারম্যান ও সিইও ট্রান্সকম গ্রুপ ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে ট্রান্সকম গ্রুপভুক্ত বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের গ্যাস বিল, বিদ্যুত বিল ও ভ্যাট ইত্যাদি ফাঁকি দিয়ে শত শত কোটি অবৈধ সম্পদ অবৈধ সম্পদ অর্জন, বিভিন্ন দেশে অর্থপাচার এবং অবৈধ উপায়ে সরকারি জমি দখলে রাখার অভিযোগ। বর্ণিত অভিযোগের সুষ্ঠু অনুসন্ধানের স্বার্থে আপনার বক্তব্য শ্রবণ ও গ্রহণ করা একান্ত প্রয়োজন।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে লতিফুর রহমান বলেন, দুদকের নোটিশ এখনও হাতে পাইনি আমি। আপনাদের ফোন পেয়েই আমি জানলাম। এর বাইরে আমার কিছু জানা নেই।

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে সন্দেহভাজন দুর্নীতিবাজ হিসেবে যে ৫০ জনের তালিকা করা হয়েছিল, তাতেও নাম ছিল লতিফুরের। তবে সে সময় তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

লতিফুরের ট্রান্সকম গ্রুপের কাছেই দেশের বাংলা এবং ইংরেজিতে দুটি প্রভাবশালী দৈনিক প্রথম আলো এবং ডেইলি স্টারের মালিকানা রয়েছে।

১৯৯৮ সালে ট্রান্সকম গ্রুপের মালিকানায় বের হয় প্রথম আলো। ১৯৯১ সালে সৈয়দ মোহাম্মদ আলী ডেইলি স্টার পত্রিকা প্রকাশ করলেও পরে তাও কিনে নেয় ট্রান্সকম গ্রুপ।

বাংলাদেশের সাংবাদিকতার বিকাশে এই দুটি পত্রিকার ভূমিকা থাকলেও নানা সময় সরকারের পক্ষ থেকে ট্রান্সকমের দুটি পত্রিকার বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগ আনা হয়েছে। বিশেষ করে পদ্মাসেতু ইস্যুতে তাদের সমালোচনা আছে।

বিশ্বব্যাংক যখন দুর্নীতি চেষ্টার অভিযোগ তুলে তখন প্রথম আলো ও ডেইলি স্টার তা ফলাও করে প্রচার করে। সে সময়ের যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসেনকে নিয়ে নানা ব্যাঙ্গাত্মক লেখনিও প্রকাশ করে তারা। তবে কানাডার আদালত এই অভিযোগকে মিথ্যা বলার পর সেটি ফলাও করে আর প্রচার করেনি তারা।

এমএ