ঢাকা শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩শে অগ্রহায়ণ ১৪২৬


পেঁয়াজ ও আলুর প্রেম কাহিনী! নাকি সিংগারার সাথে সামুচার দন্দ?


১৮ নভেম্বর ২০১৯ ১৩:৩২

আপডেট:
৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ০৭:৪৭

রাশেদ রাসেল

সিংগারা ও সামুচা! থাকার কথা ছিলো কাছাকাছি পাশাপাশি। তদের প্রেম তো আজকের নয় শত শত বছরের। তবুও কেন এত বছরের মায়ার বাধন ছিন্ন করে অজানার উদ্দেশ্যে পারি জমিয়েছে সামুচা? সে কি আদৌ ফিরবে তার ভালোবাসার পাত্রী সিংগারার কাছে? সে ফিরবে কি না.. তা হয়তো সময় বলে দেবে।


বাস্তবতায় আমরা দেখতে পাই..
যুবক যুবতী একে অপরের প্রতি নিস্বার্থহীন ভাবে ভালোবাসায় আবদ্ধ হয়। কিন্তু কখনো কখনো স্বার্থের বেড়াজালে নিস্বার্থহীন কথাটি বড়ই বেমানান। দুজনরে মধ্যে কেউ যদি রাতারাতি সোনার হরিণ পেয়ে যান বা টাকা নামক আজব গুহার সন্ধান পান.. তাহলে এক মূহু্র্তেই এক জন অপর জনকে দুরে ঠেলে দিতেও ‍দ্বিধা বোধ করেন না।

 

তবে কি সামুচার ক্ষেত্রেও তাই ঘটেছে। পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির ফলে রাতারাতি সামুচা থেকে সোনার হরিণ বনে যাওয়ায় আজ ভুলে গিয়েছে তার শত শত বছরের প্রেম কাহিনী! ভুলে গিয়েছে তার ভালোবাসার পাত্রী সিংগারাকে!

 

আমার উঠানো ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে.. পাশাপাশি সারি বদ্ধ দুইটি বক্স। একটিতে থাকার কথা ছিলো সিংগারা এবং আর একটিতে বেচারা অভাগা সামুচার। 

সামুচা না থাকার কারণ সম্পর্কে দোকানীর কাছে জানতে চাইলে.. তিনি বলেন, পেঁয়াজের যা দাম বাবা। ৫ টাকার সামুচা ২০ টাকা বিক্রি করলেও আমাদের খরচ উঠবে না। তাই সামুচা বানানো ছেড়ে দিয়েছি।
 

দোকানীর কথাতেই স্পষ্ট পেঁয়াজের দাম বাড়ার ফলেই আজ ভালোবাসার সাজানো ঘর ভেঙ্গেছে সিংগারা ও সামুচার। তাদের মাঝে কোন দন্দ নেই, অন্যদের মতো নেই কোন সংশয়। ভয় নেই

স্বার্থপরের মতো ছেড়ে যায় নি সামুচা আবারো পেঁয়াজের দাম কমলেই সিংগারার কাছে ফিরবে সামুচা। আবারো ফিরবে তাদের ভালোবাসার চাঞ্চচল্যতা। আবারো থাকবে তারা কাছাকাছি আর পাশাপাশি।
পেঁয়াজ বাবাজী একটুর জন্য মিস করেছেন তার জীবনের প্রথম ট্রিপল সেন্সুরী। খুচরা বাজারে যে তার মূল্য ছিলো ২৫০ এর ও বেশী।
সিংগারাতে যেমন আলু সামুচাতেও তেমনি পেঁয়াজ। তরকারীতেও আলু আর পেঁয়াজের ভালোবাসার রসায়নটা অসাধারণ।আলুর সাথে পেঁয়াজের প্রেমটা অটুট থাকুক চিরদিন চির জীবন! ভালোবাসার বন্ধনে আবদ্ধ হোক তাদের প্রতিটি সময়।
পেঁয়াজ ছাড়া তরকারী আর পানি ছাড়া পিপাসা নিবারন.. এ যেন একই সুত্রে গাথা প্রবাদ বাক্যের ন্যয়। আমরা বাঙ্গালী জাতি মসলা ছাড়া তরকারী এ আমাদের গলা দিয়ে নামবে এ যেন কল্পনার ও অতিত। পেঁয়াজ মসলা জাতীয়.. যাকে ছাড়া বাঙ্গালীদের তরকারীর পরিপূর্ণ সুস্বাদু স্বাধ আশা করলে আপনি নিরাশার পাত্র হবেন ১০০%। বাঙ্গালীদের তরকারীতে পেঁয়াজের কোন বিকল্প নেই। তাই আমাদের সরকার দ্রত পেঁয়াজের দাম কমানোর জন্য উদ্যগ গ্রহন করবেন এই প্রত্যাশা সকল সাধারন মানুষের।
নিজস্ব প্রতিবেদক, রাশেদ রাসেল।