ঢাকা শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩শে অগ্রহায়ণ ১৪২৬


সিগন্যাল অমান্য করায় দুর্ঘটনা, ৩ জন বরখাস্ত


১২ নভেম্বর ২০১৯ ১১:৩৯

আপডেট:
১২ নভেম্বর ২০১৯ ১১:৫১

ছবি-নতুনসময়

তুর্ণা নিশীথা সিগন্যাল অমান্য করার কারণেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খান।

মঙ্গলবার ভোর তিনটার দিকে কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে আন্তঃনগর তুর্ণা নিশীথা ও আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

এদিকে এডিজি (অপারেশন) মিয়া জাহান বলেছেন, তূর্ণা এক্সেপ্রেসের চালক সিগন্যাল অমান্য করে ভুল লাইনে চলে যাওয়ার রেল দূর্ঘটনাটি ঘটেছে। ট্রেনের চালক, সহঃচালসহ ৩ জনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানের জন্য তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মিতু মরিয়মকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এ দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৬জনের মৃত্যু কথা নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খান। অপরদিকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন দুই ট্রেনের শতাধিক যাত্রী। নিহত দুইজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন- আলা আমিন (২৫) ও আলী মোহাম্মদ ইউসুফ (৩৫)। তাদের দুইজনের বাড়ি হবিগঞ্জে।

মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার জাকির হোসেন চৌধুরী জানান, উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনটি এক নম্বর লাইনে ঢুকছিল। তুর্ণা নিশীথাকে আউটারে থাকার সিগন্যাল দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই সিগন্যাল অমান্য করে মূল লাইনে ঢুকে পড়ার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডা. শাহ আলম জানান, দুর্ঘটনায় আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এরমধ্যে ৫৭ জন রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন বলে আমরা জানতে পেরেছি। তার মধ্যে কুমিল্লায় ১২ জন, ঢাকায় ৩ জন, আশুগঞ্জ ১০ জন, আখাউড়ায় ২ জন, কসবায় ২ জন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২৮ জন।