ঢাকা মঙ্গলবার, ২৩শে অক্টোবর ২০১৮, ৮ই কার্তিক ১৪২৫


হাসপাতালের নার্সকে ধমক দিলেন খালেদা


৯ অক্টোবর ২০১৮ ০১:৪৩

আপডেট:
২৩ অক্টোবর ২০১৮ ০৩:৪৩

ফাইল ছবি

প্রায় ৯ মাস কারাভোগের পর বেগম খালেদা জিয়াকে গত শনিবার (৬ অক্টোবর) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করা হয়। বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে কাটালেন দুই দিন।। এই দুদিন জেলখানার বাইরে থেকেই চাঙ্গা যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। খালেদা ফিরে পেলেন সেই হারানো শক্তি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার বাড়ি গোপালগঞ্জে হওয়ায় ওই এলাকার মানুষের ওপর তীব্র ক্ষোভ এই বিএনপি চেয়ারপারসনের।

হাসপাতাল সূত্রে বলা হয়, হাসপাতালেও তার চিকিৎসা কার্যে নিয়োজিত কারও বাড়ি ওই এলাকায় নাকি তা জানতে চেয়ে খালেদা জিয়া অতিষ্ট করে দিচ্ছেন উপস্থিত সবার জীবন। সবাইকে নাকি তিনি জিজ্ঞেস করছেন ‘তুমি কি গোপালী?’ অবস্থা দৃষ্টে মনে হচ্ছে, স্বল্পতম সময়ের মধ্যে কারাবাসের দুঃসহ স্মৃতি পেছনে ফেলেছেন তিনি। বর্তমানে খালেদা জিয়ার হুংকারে হুংকারে কাঁপছে হাসপাতাল।

সাধারণত, হাসপাতালে নার্স-ডাক্তারদের ৮ ঘণ্টা ডিউটি থাকে। খালেদা জিয়া যেহেতু ভিআইপি রোগী এবং তিন বারের প্রধানমন্ত্রী তাই তার নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় তাকে ফুলটাইম নার্স দেওয়া হয়েছে। এই ফুলটাইম নার্সরা চক্রাকারে দায়িত্ব পালন করেন। দিনে তিন বার তাদের ডিউটি পরিবর্তন হয়। সে হিসেবেই শনিবারের ডিউটিতে ছিলেন পারুল নামের এক নার্স। সেদিন পারুলকে দেখেই বেগম জিয়ার অনুসন্ধিৎসু মন মাথা চাঁড়া দিয়ে ওঠে। তাকে জিজ্ঞেস করেন, ‘তোমার বাড়ি কোথায়?’ পারুল প্রথমে উত্তর দেননি।

অনুসন্ধিৎসু বেগম জিয়া এবার ক্ষুব্ধ হলেন। ধমক দিয়ে তিনি বলেন, ‘অ্যাই, তুমি কি গোপালী নাকি?’ এবার পারুল উত্তর দিল। বলল, ‘জি না ম্যাডাম। আমার বাড়ি মাদারীপুর।’ খালেদা জিয়া আঁতকে উঠলেন। এমনিতেই খালেদা গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর বা ফরিদপুর এলাকার মানুষদের বিশ্বাস করেন না। ওই নার্সের কাছ থেকে সেবা নিতে তিনি অস্বীকৃতি জানালেন। শেষ পর্যন্ত ওই নার্সের সঙ্গে আর দেখা করেননি খালেদা।

খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ঠরা বলেন, গোপালগঞ্জ ও এর আশেপাশের এলাকার মানুষের ব্যাপারে খালেদা জিয়ার আজীবনের ভয় রয়েছে। ওই সব এলাকার মধ্যে কারও বাড়ি জানলেই তিনি ক্ষুব্ধ হন। ধমকাধমকি করে বলেন, তুমি তো আমাকে মেরে ফেলবে। কারাবাসের ঝক্কিতে মাঝখানে বিষয়টি কমে গিয়েছিল। কিন্তু মুক্ত আলো-বাতাস গায়ে মেখে খালেদা জিয়া আবার তাঁর পুরনো ফর্মে ফিরে এসেছেন।

এছাড়া খাওয়া দাওয়া নিয়েও খালেদা জিয়ার হুংকারে অস্থির বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ। কারাগার থেকে খালেদার জন্য যে খাবার এসেছে সে বিষয়ে তিনি তীব্র আপত্তি জানিয়েছেন। কারাবিধি অনুসারে কারাবন্দিদের জন্য থোক টাকা বরাদ্দ থাকে। সেই টাকা থেকে একজন কারাবন্দী যে কোনো জিনিস কিনতে পারেন। খালেদা জিয়া এখন বায়না ধরেছেন, ওই টাকা দিয়ে তাঁর জন্য হোটেল প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁ থেকে স্যান্ডউইচ, স্যুপসহ অন্যান্য খাবার এনে দিতে হবে। বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ এমন আবদার পূরণে অসমর্থ। তাই এ বিষয়ে তাঁরা কারা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন।

খালেদা জিয়ার কাছে খাওয়া-দাওয়ার তালিকা চেয়েও বিফল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কারণ এখন পর্যন্ত কোনো তালিকা দেননি খালেদা জিয়া। তবে প্রয়োজনীয় কাজগুলো না করলেও সারাক্ষণই তিনি তর্জন-গর্জন করছেন, হম্বিতম্বি দেখাচ্ছেন তার চিকিৎসা সেবায় দায়িত্বরতদের ওপর। কারাদণ্ড প্রাপ্ত আসামি হওয়া স্বত্ত্বেও ইতিমধ্যে হাসপাতালের কয়েকজনের চাকরিও খেয়ে ফেলেছেন তিনি। মানে বেশ কয়েকজনকে তিনি হুমকি দিয়ে বলেছেন, ‘ক্ষমতায় গেলে তোমার চাকরি খাব।’

এমএ