ঢাকা বুধবার, ১৯শে ডিসেম্বর ২০১৮, ৬ই পৌষ ১৪২৫


মইনুলের কাছে ক্ষমা চাইতে মাসুদা ভাট্টিকে লিগ্যাল নোটিশ


২২ অক্টোবর ২০১৮ ১০:৪৩

আপডেট:
১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ২০:৪৬

ছবি ফাইল ফটো

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের কাছে ক্ষমা চাওয়ার জন্য ২৪ ঘন্টা সময় দিয়ে দৈনিক আমাদের অর্থনীতির নির্বাহী সম্পাদক মাসুদা ভাট্টিকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবী। সোমবার আইনজীবী এসএম জুলফিকার আলী জুনু এ নোটিশ পাঠান। আইনজীবী এসএম জুলফিকার আলী জুনু বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেন।

এ ছাড়া সামাজিক মাধ্যমে মইনুল হোসেনকে নিয়ে মন্তব্য করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তাকে কেন অপরাধী করা হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে ওই নোটিশে।

নোটিশে বলা হয়, মাসুদা ভাট্টি কোন তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মিটিংয়ের জামায়াতের প্রতিনিধি হিসেবে যান বলে উল্লেখ করেন- তা লিগ্যাল নোটিশ পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তথ্যপ্রমাণসহ জাতির সামনে তুলে ধরার অনুরোধ করছি। তথ্য-প্রমাণসহ তা জাতির সামনে তুলে ধরতে ব্যর্থ হলে প্রকাশ্যে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের কাছে ক্ষমা চাওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি। অন্যথায় উপযুক্ত আইনের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট আদালতে যথোপযুক্ত ক্ষতিপূরণ ও শাস্তি চেয়ে মানহানির মামলা দায়ের করা হবে।

লিগ্যাল নোটিশের এক কপি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়ার কাছে পাঠানো হয়। নোটিশ প্রাপ্তির এক সপ্তাহের মধ্যে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করা হয়।

গত ১৬ অক্টোবর রাতে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তর টিভির টকশোতে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি প্রশ্ন করেন, 'জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে আপনি যে হিসেবে উপস্থিত থাকেন- আপনি বলেছেন আপনি নাগরিক হিসেবে উপস্থিত থাকেন। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই বলছেন, আপনি জামায়াতের প্রতিনিধি হয়ে সেখানে উপস্থিত থাকেন।'

মাসুদা ভাট্টির এই আক্রমণাত্মক প্রশ্নে রেগে গিয়ে মঈনুল হোসেন বলেন, 'আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই। আমার সঙ্গে জামায়াতের কানেকশনের কোনো প্রশ্নই নেই। আপনি যে প্রশ্ন করেছেন তা আমার জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর।'

পরে 'শিক্ষিত ভদ্রমহিলা হিসেবে' অন্য প্রশ্ন করার আহ্বান জানান ব্যারিস্টার মইনুল। এ সময় মাসুদা ভাট্টি বলেন, 'আপনি শিবিরের একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে বক্তব্য দিয়েছিলেন এবং আপনি সেই অনুষ্ঠানে বলেছেন যে আপনার সঙ্গে শিবিরের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ আছে। সেই বক্তব্য এখন সব জায়গায় দেখানো হচ্ছে। এ কারণে মানুষ এই প্রশ্ন করছে যে আপনি জামায়াতের হয়ে এখানে উপস্থিত থাকছেন কি না।'

এর জবাবে মইনুল বলেন, 'আমাকে বাদ দেন। আচ্ছা, ঠিক আছে আপনি কার প্রভু হিসেবে আসছেন?' তখন মাসুদা ভাট্টি বলেন, 'আমি কোনো দলের নই, বরং সাংবাদিক হিসেবে এসেছি।'

এ ঘটনার পর ব্যারিষ্টার মইনুল হোসেন ফোনে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টির কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন। পরে মাসুদা ভাট্টি মইনুল হোসেনকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বলেন।

আরকেএইচ